ভোলায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ হাসপাতালে শতাধিক

ভোলায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ হাসপাতালে শতাধিক

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০১৯-১০-২০: ০৭:২৯ পিএম

ফেসবুকে ধর্মীয় বিষয় নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট দেয়ার প্রতিবাদে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় মুসল্লিদের সমাবেশে পুলিশ ও জনতার সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ চার শিশুসহ ৩১ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পাশাপাশি স্থানীয় হাসপাতালে শতাধিক ব্যক্তিকে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে ৩১ জনকে গুরুতর অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যায়।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. এসএম বাকির হোসেন বলেন, রোববার বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গুলিবিদ্ধ চার শিশুসহ ৩১ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। একজনের গলায় গুলি লেগেছে। তাকে নাক, কান ও গলা বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বাকিদের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কয়েকজন জানান, ফেসবুকে আল্লাহ ও হজরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে কটূক্তি করার প্রতিবাদে বিপ্লব চন্দ্র শুভর বিচারের দাবিতে সকালে ঈদগাহ মাঠে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে তৌহিদী জনতা। সকাল ৯টা থেকে লোকজন মাঠে জড়ো হয়। এ সময় শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ সমাবেশে বাধা দেয় পুলিশ। সেই সঙ্গে তাদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়। এতে তাদের চারজন নিহত হন। পাশাপাশি শতাধিক আহত হন।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহতরা হলেন- বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪২), বোরহানউদ্দিন উপজেলার মহিউদ্দিন পাটোয়ারীর ছেলে মাহবুব (১৬), মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজানুর রহমান (৪৪) ও বোরহানউদ্দিনের মো. শাহিন।

আহতদের মধ্যে ৫০ জনকে বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে, ৪০ জনকে ভোলা সদর হাসপাতালে এবং ৩১ জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল