এবার লাগামহীম ভোজ্য তেলের বাজার

এবার লাগামহীম ভোজ্য তেলের বাজার

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০২০-০১-০৫: ১২:৫৯ পিএম

পেঁয়াজের পর এবার লাগামহীন হয়ে পড়েছে দেশের ভোজ্য তেলের বাজার। আন্তর্জাতিক বাজারে বুকিং রেট বেড়ে যাওয়ার অজুহাতে কোনো সংকট না থাকা সত্ত্বেও গত এক মাসে পাইকারি বাজারে মণ প্রতি তেলের দাম বেড়েছে অন্তত ৩শ টাকা। আর প্রতি লিটারে গত এক সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ টাকা বেড়েছে সয়াবিন তেল।

গত ডিসেম্বর থেকে দেশে ভোজ্য তেলের দাম বাড়ার যে যাত্রা শুরু হয় তা নতুন বছরের শুরুতেও অব্যাহত রয়েছে। দাম বাড়ার গতিও বেড়েছে আগের চেয়ে বেশি।

সবশেষ পাইকারি পর্যায়ে প্রতি মণ সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৩৮০ টাকায়। যা গত ডিসেম্বরে ছিলো ৩ হাজার টাকারও কম। সয়াবিনের মতো পাম অয়েল ও সুপার সয়াবিন এক মাসে দামও ৩শ থেকে সাড়ে তিনশো টাকা বেড়েছে।

এ প্রসঙ্গে আর এন এন্টারপ্রাইজের মালিক আলমগীর পারভেজ বলেন, বুকিং রেট বেড়েছে। অনেক প্রোডাক্ট এলসি হয়নি। তাই দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

পাইকারির মতো খুচরা কিংবা বোতলজাত তেলের দামও বর্তমানে লাগামহীন। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে গত এক মাসে বোতলজাত তেলের দাম প্রতি লিটারে বেড়েছে ১০ টাকা।

ব্যবসায়ীদের দাবি, বাংলাদেশে ভোজ্য তেলের রপ্তানিকারক দেশ মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ায় দাম নিয়ে অস্থিরতা চলছে। তার রেশ এসে পড়ছে বাংলাদেশের বাজারে।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন বাজারে আজও রয়েছে পেঁয়াজের বাড়তি দাম। দেশী পেঁয়াজ খুচরা বাজারে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বেচা হচ্ছে। পাইকারীতে যা দেড়শো টাকা। গত সপ্তাহে ৮০/৮৫ টাকা কেজি হিসেবে বেচা হলেও আজ দেড়শো টাকার বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন বাজারে আজও রয়েছে পেঁয়াজের বাড়তি দাম। দেশী পেঁয়াজ খুচরা বাজারে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বেচা হচ্ছে। পাইকারীতে যা দেড়শো টাকা। গত সপ্তাহে ৮০/৮৫ টাকা কেজি হিসেবে বেচা হলেও আজ দেড়শো টাকার বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।


নিউজটি শেয়ার করুন

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল