ভোটে আছে বিএনপি

ভোটে আছে বিএনপি

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০২০-০১-১৩: ০৪:৩২ পিএম

বিএনপি নির্বাচন বর্জন করবে বিএনপি দলীয় প্রার্থী আবু সুফিয়ান বলেছেন, ভোটের পরিবেশ না থাকলেনও তারা ভোট বর্জন করবেন না। তারা ইভিএমে ভোট কারচুপির শেষটা দেখতে চান। 

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে নগর বিএনপির প্রধান কার্যালয় নসিমন ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান। 

আবু সুফিয়ান বলেন, 'এখানে ভোটের কোনো পরিবেশ নেই। মানুষের সঙ্গে প্রহশণ করা হয়েছে। এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে আমি এ নির্বাচন স্থগীত ও পুনর্নির্বাচনের দাবিতে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দেওয়ার কথাটি জানিয়েছিলাম। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে খেয়াল করলাম এর পরেও কোনো ব্যবস্থ নেয়নি নির্বাচন কমিশন। ইতোমধ্যে ১০০ ভাগ কেন্দ্র ওরা দখল করে নিয়েছে। এখানে আমার জেতার কোনো সম্ভাবনা নেই। '

বিএনপি প্রার্থী বলেন, 'আপনাদের মনে প্রশ্ন কেন আমি নির্বাচন বর্জন করিছনা। আমরা এর শেষটা দেখতে চাই। ইভিএম'র ডিফেক্টিভিটি গুলো জানতে চাই। এখনতো ভোটারদের ভোট ছাত্রলীগ যুবলীগ দিয়ে দিচ্ছে। এরমাঝেও যেসব ভোটার ভোট দিতে পেরেছে, তাদের মতামতটা দেখতে চাই। ভোটের পরে ইভিএমকে ওরা কিভাবে ম্যানুপুলেট করে তা দেখতে চাই।'

তিনি বলেন, ‌'সকাল ৯টায় এখলাছুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে বিএনপি কর্মীদের বের করে দেওয়া হয়। সকাল ৯টায় এনএমসি চৌধুরী স্কুলে আওয়ামী লীগের কর্মীরা হামলা চালিয়ে বিএনপি কর্মীদের মারধর করে। এসময় সিনিয়র আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম আহত হন। সকাল ১০টায় হাসান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল করে আওয়ামী লীগের কর্মীরা একতরফা ভোট দেয়। হামলায় আহত যুবদল নেতা খোরশেদের অবস্থা আসঙ্কাজনক।এ পর্যন্ত দুইজন গুরুতরসহ অন্তত ৫০ জন বিএনপির নেতাকর্মী আহত হয়েছে নৌকার সমর্থকদের হাতে।'

আবু সুফিয়ান বলেন, ‘সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন ও পুলিশের সহায়তায় নৌকার কর্মীরা একটি প্রহসনের ভোট চুরির নির্বাচন করছে। নির্বাচনের নামে জাতির সাথে তামাশার আয়োজনে জাতি লজ্জিত ও হতাশ। দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে এমনে (এমনিতেই) জাতির আস্থা নেই। এই নির্বাচনের মাধ্যমে এই নির্বাচন কমিশন যে সরকারি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে তা প্রমাণিত।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণ মনে করেছিল একটি উৎসবমুখর পরিবেশে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে। কিন্তু জাতি আজকে সকাল থেকে যা দেখলো তা হচ্ছে তামাশার নির্বাচনের জন্য ইসির এতো আয়োজন ছিল সেটা স্পষ্ট। কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্ট বের করে দেওয়া হয়েছে। ৯টার পরও সব কেন্দ্র দখলে নিয়ে নৌকার সমর্থকরা ইভিএমের প্যানেল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। কেন্দ্রে কেন্দ্রে সাধারণ ভোটারদের যেতে বাধা দেওয়া হয়েছে।’


সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল