কুয়েতে ৪শ' বাংলাদেশী আক্রান্ত, ৮জনের মৃত্যু

কুয়েতে ৪শ' বাংলাদেশী আক্রান্ত, ৮জনের মৃত্যু

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  ২০২০-০৫-০৩: ০৯:৪৪ পিএম

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে মধ্যপ্রাচ্যের কুয়েতে। রোববার (৩ মে) কুয়েতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যমতে, করোনাভাইরাসে আরো ৩৬৪ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আজ। এর মধ্যে প্রবাসী বাংলাদেশি ৩৭ জন। আজ পর্যন্ত সর্বমোট আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯৮ জন বাংলাদেশি। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে আটজনের।

এ পর্যন্ত কুয়েতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে বিভিন্ন দেশের ৪ হাজার ৯৮৩ জনে, চিকিৎসাধীন ৩ হাজার ১৬৯ জন, সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৭৭৬ জন ও সংকটপূর্ণ ৭২ জন।

আজ নতুন করে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। একজন ভারতীয় (৪৩), একজন বাংলাদেশি (৪৬), একজন জর্দানিয়ান (৫৪) ও একজন পাকিস্তানি (৬১) নাগরিক।

কুয়েতে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৩৭ জনের। এর মধ্যে ১৩ জন ভারতীয়, দুজন ইরানি, আটজন বাংলাদেশি, একজন সোমালীয়, দুজন মিসরীয়, দুজন জর্দানিয়ান, একজন ফিলিপিনো, একজন পাকিস্তানি ও সাতজন স্থানীয় নাগরিক।

এ ছাড়া দেশটির বিভিন্ন স্থানে তিন হাজার ৯২৭ জনকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

বর্তমানে কুয়েতে অনির্দিষ্টকালের জন্য জরুরি অবস্থা চলছে। দৈনিক ১৬ ঘণ্টা, বিকেল ৪টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। প্রয়োজন ব্যতীত ঘরের বাইরে বের হওয়া নিষেধ। বের হলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করতে হবে। মাহবুলা ও জিলিব আল সুয়েখ দুটি এলাকায় লকডাউন চলছে। টেকওয়ে ও হোম ডেলিভারি বিধি মেনে রেস্টুরেন্ট খোলা,খাদ্যদ্রব্যের দোকান ও জামিয়া (সুপার মার্কেট) খোলা, হাসপাতাল ও ফার্মেসিগুলো খোলা আছে। স্বল্প সময়ের জন্য ব্যাংকগুলো খোলা হয়।

এদিকে রেমিটেন্স পাঠানো ৫০ শতাংশের নিচে নেমে গেছে। তবু অর্ধেক কর্মচারী দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে মানি এক্সচেঞ্জগুলো। এ ছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রতিরোধে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটির সরকার। চলছে সরকারি ছুটি। বন্ধ থাকবে ২৮ মে পর্যন্ত। এ ছাড়া সব ধরনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, অফিস আদালত খোলা রাখা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সবাইকে সমান অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চিকিৎসার নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির আমির।

অনেক প্রবাসী এরই মধ্যে চাকরিহীন হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন দেশের মতো এখানেও ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে অসংখ্য প্রবাসী।


সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল