হেফাজত থেকে শফীপন্থীরা বাদ...

হেফাজত থেকে শফীপন্থীরা বাদ...

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০২০-১১-১৫: ০৬:৩৭ পিএম

প্রতিষ্ঠাতা আমীর প্রয়াত শাহ আহমদ শফীর সন্তানসহ অধিকাংশ অনুসারীদের বাদ দিয়ে হেফাজতে ইসলামের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন জুনায়েদ বাবুনগরী ও নূর হোসাইন কাসেমী। সংগঠনটির আমীর ও মহাসচিব পদে নির্বাচিত হয়েছেন যথাক্রমে বাবুনগরী ও কাসেমী। এর মধ্য দিয়ে কওমী মাদরাসাভিত্তিক এ সংগঠনটি ভাঙনের মুখে পড়তে যাচ্ছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রোববার (১৫ নভেম্বর) সকালে চট্টগ্রামের হাটহাজারীর বড় মাদরাসা হিসেবে পরিচিত দারুল উলুম মইনুল ইসলাম মাদরাসায় প্রতিনিধি সম্মেলন শুরু হয়। এরপর দুপুরে সাংবাদিকদের সামনে ১৫১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়।

হাটহাজারী মাদরাসায় ঘোষিত হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নতুন কমিটিতে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আমীর প্রয়াত শাহ আহমদ শফীর সন্তানসহ অনুসারীদের কারো জায়গা হয়নি। নতুন কমিটি ঘোষনার পর শাহ আহমদ শফীর অনুসারীরা বলছেন বিগত কমিটির অন্তত ৫০ জন দায়িত্বশীলদের বাদ দিয়ে এ সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে, যা হেফজতের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী। 

হেফাজতের নতুন ১৫১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটিতে আমীর ও মহাসচিব ছাড়াও নায়েবে আমীর পদে ৩২ জন, যুগ্ম-মহাসচিব পদে চারজন, সহকারী মহাসচিব পদে ১৮ জন এবং সম্পাদকমণ্ডলীর বিভিন্ন পদে রয়েছেন ৮১ জন। এছাড়া উপদেষ্টামণ্ডলীতে আছেন ২৫ জন।

কিন্তু বিগত কমিটিতে প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করা প্রতিষ্ঠাতা আমীর শাহ আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানী ও একই কমিটিতে কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন মঈনুদ্দিন রুহীদের কারও জায়গা হয়নি নতুন কমিটিতে।

হেফাজতের নতুন কমিটিতে যাদের রাখা হয়নি। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন হেফাজতের আগের কমিটির নায়েবে আমির আল্লামা মুফতি আমিনীর পুত্র মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, যুগ্ম মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী, মাওলানা সলিমুল্লাহ।


নিউজটি শেয়ার করুন

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল