বিলেট রপ্তানী শুরু জিপিএইচ ইস্পাত'র: রপ্তানিতে নতুন দিগন্ত উম্মোচন

বিলেট রপ্তানী শুরু জিপিএইচ ইস্পাত'র: রপ্তানিতে নতুন দিগন্ত উম্মোচন

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০২০-১১-১৮: ০৯:১২ পিএম

রপ্তানিতে নতুন দিগন্ত উম্মোচন করলো বাংলাদেশের জিপিএইচ ইস্পাত।
বুধবার (১৮ নভেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ থেকে চীনে প্রথম বিলেট রপ্তানির শিপমেন্টের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তারা ওই মন্তব্য করেন। ডিজিটাল প্লাটফর্মে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এমপি বলেন-“করোনাকালিন দুঃসময়ের মধ্যেও জিপিএইচ ইস্পাত বিলেট রপ্তানি করে দেশ ও জাতির জন্য সম্ভাবনা ও সুসংবাদ বয়ে এনেছে। তারা ইস্পাত জগতে বিশাল কর্মযজ্ঞ সৃষ্টি করেছে। এই প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক বাজারে রপ্তানি বৃদ্ধির জন্য তিনি বিভিন্ন দুতাবাস সমুহকে সক্রিয় করার আহবান জানান।” 

বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন- “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জিপিএইচ ইস্পাতের বিলেট রপ্তানির তথ্যটি পৌঁছে দেবো। রপ্তানি বাস্কেটে জিপিএইচ ইস্পাত নতুন আইটেম সংযুক্ত করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।” বানিজ্য মন্ত্রী নিজেকে একজন রপ্তানিকারক হিসেবে বলেন- পোষাক শিল্পের ন্যায় উৎপাদিত ইস্পাত সামগ্রী রপ্তানি পূর্বক জিপিএইচ ইস্পাত বৈদেশিক মূদ্রা আয়, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সাশ্রয়ী পরিবেশ বান্ধব সবুজ কারখানা সৃজন করেছে। এই প্রেক্ষাপটে জিপিএইচ  ইস্পাতকে এমএস বিলেট ও এমএস প্রোডাক্ট রপ্তানিতে নগদ প্রণোদনা দেয়ার আবেদনের বিষয়টি বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের বিশেষ বিবেচনায় রয়েছে। অনুষ্ঠানের এই পর্যায়ে শিল্প ও বানিজ্য মন্ত্রী অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন। তখন প্লান্ট থেকে বেলুন উড়ানো হয়।

চট্টগ্রাম চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহাবুবল আলম বলেন, জিপিএইচ ইস্পাত আমাদের প্রবীণ সদস্য ও উদীয়মান শিল্প প্রতিষ্ঠান। তারা নন ট্রেডিশনাল আইটেম বিলেট রপ্তানি করছে। বিলেট রপ্তানি করে বেসরকারি খাতের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মান বয়ে এনেছে। তাদেরকে আগামীতে চট্টগ্রাম চেম্বার অধিকতর সহায়তা প্রদান করবে।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখতে গিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এস এম আবুল কালাম আজাদ বলেন, আজ শুধু জিপিএইচ ইস্পাতের নয়, চট্টগ্রাম বন্দরেরও গর্বের দিন। এতে করে নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠানরা অনুপ্রাণিত হবে। তার পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা দিয়ে তিনি বলেন, জিপিএইচ ইস্পাত তাদের অসাধারণ দক্ষতা ও সক্ষমতা দিয়ে “স্টেট অব আর্ট” প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন পণ্য উৎপাদন করছে। ট্রেড ও ট্র্যারিফ কমিশন চেয়ারম্যান মুনসি শাহাবুদ্দিন আহামেদ বলেন, মুজিবশত বর্ষ ও শেখ হাসিনার মিশন ও ভিশন বাস্তবায়নে এটি একটি নতুন সংযোজন। তিনি জিপিএইচ প্লান্ট পরিদর্শনের অভিজ্ঞতায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। 

স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে জিপিএইচ গ্রুপ চেয়ারম্যান ও  ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন- রপ্তানির জন্য আন্তর্জাতিক মান অর্জন পূর্বক জিপিএইচ ইস্পাত অব্যবহৃত বিলেট রপ্তানি করে বৈদেশিক মূদ্রা আয়, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। একই সাথে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে ৭০-১০০ মিলিয়ন ইউএস ডলারের সমপরিমান রপ্তানি উন্নীত করার পরিকল্পনা করেছি। সরকারি নীতিমালার সহায়তা পেলে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষনে সক্ষম হব। আমরা আশা করবো বাংলাদেশের অন্যান্য ইস্পাত উৎপাদক প্রতিষ্ঠান সমূহ একই সাথে রপ্তানিতে এগিয়ে আসবে।

সমাপনী বক্তব্যে জিপিএইচ ইস্পাতের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলমগীর কবির বলেন- আমাদেরকে এই গুনগত মান ধরে রেখে বিশ্বব্যাপি ব্রান্ডিং করতে হবে। তিনি এই ব্যাপারে গণ মাধ্যমের সহায়তা কামনা করেন। তিনি অতীতের দীর্ঘ শ্রমে ঘামে গড়ে উঠা এই প্লান্টের জন্য শ্রমিক কর্মচার্রীদের জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। 

ধন্যবাদ জ্ঞাপন বক্তব্য দিতে গিয়ে জিপিএইচ ইস্পাতের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলমাস শিমুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০৪১ এর মিশন ও ভিশন ২০২০ এসে জিপিএইচ ইস্পাত বাস্তবায়ন করেছেন বলে তথ্য দেন। তিনি শিল্পমন্ত্রী, বানিজ্যমন্ত্রী, ট্রেড ও ট্র্যারিফ কমিশন চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম চেম্বার প্রেসিডেন্ট চবক চেয়ারম্যান সহ সকল স্টেক হোল্ডারদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

অনুষ্ঠানে জিপিএইচ ইস্পাতের ডাইরেক্টর এম এ রউফ, মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান, আব্দুল আহাদ, আজিজুল হক রাজু, স্বতত্র পরিচালক মোকতার আহামদ উপস্থিত ছিলেন। 

সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, নির্বাহী পরিচালক (এফ এন্ড বিডি) কামরুল ইসলাম, এফসিএ।

বিলেট রপ্তানি উপলক্ষে জিপ্এিইচ ইস্পাতের প্লান্ট এলাকা সজ্জিতকরণ ও উৎসব মুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। 
 


নিউজটি শেয়ার করুন

সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল