শিক্ষাগুরুর পদধুলি নিতে বাসায় গেলেন তথ্যমন্ত্রী

শিক্ষাগুরুর পদধুলি নিতে বাসায় গেলেন তথ্যমন্ত্রী

 নিজস্ব প্রতিবেদক
  ২০১৯-০৮-০৯: ০৫:৫৯ পিএম

চট্টগ্রামের সরকারি মুসলিম হাই স্কুলের ছাত্র ছিলেন হাছান মাহমুদ। সময়ের পরিক্রমায় তিনি আজ তথ্যমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক। রাষ্ট্রীয় নানা গুরুত্বপূর্ণ কাজে দিন-রাত ব্যস্ত থাকলেও ভুলতে পারেননি মুসলিম হাই স্কুলের স্মৃতি।

ভালোবাসার টানে আজ শুক্রবার (৯ আগস্ট)  সকালে শৈশবের স্মৃতি জড়ানো বিদ্যাপীঠ মুসলিম হাই স্কুলের ইংরেজির শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাককে তাঁর বায়েজিদের বাসায় দেখতে যান তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। প্রিয় ছাত্রকে দেখার সাথে সাথে চোখ ভিজে যায় প্রবীণ শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাকের। প্রিয় শিক্ষকের সান্নিধ্যে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন তথ্যমন্ত্রীও।

১৯৬৫ থেকে ৯৪ সাল পর্যন্ত মুসলিম হাই স্কুলে শিক্ষকতা করেছেন মোহাম্মদ ইসহাক। একপর্যায়ে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বও পালন করেন তিনি। বহুদিন পর কাছে পেয়ে ড. হাছান মাহমুদের কাছে শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাক জানতে চান, তোমার সন্তান কয়জন? মন্ত্রী জবাব দেন, ‘আমার এক ছেলে, দুই মেয়ে। ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে। মেয়ে একটা এ-লেভেলে পড়ছে।’ বলতেই শিক্ষক বলে উঠেন, ‘দেশের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো ভালো। চট্টগ্রামে সবচেয়ে ভালো স্কুল হচ্ছে তিনটি- মুসলিম হাই, কলেজিয়েট ও খাস্তগীর।’

নবম শ্রেণীর শেষের দিকে হাছান মাহমুদ বয় স্কাউট টিমের ক্যাপ্টেন হন। একই সংগে রেডক্রস টিমেরও সদস্য তখন। এসবে মেতে থাকার ফলে প্রিয় ছাত্র লেখাপড়ায় কিছুটা অমনোযোগী হয়ে পড়েছিলেন বলে মনে হয়েছিল ইসহাক স্যারের। তাই তিনি একদিন সাইকেল চালিয়ে হাছান মাহমুদের বাবার কাছে গিয়ে অভিযোগ দেন। বলেন, আপনার ছেলে তো এখন পড়ে না, নেতাগিরী করে। হাছান মাহমুদের বাবা রাগী মানুষ ছিলেন। শুনেই ছেলেকে দিলেন একটা মাইর। সেই স্মৃতি হাতড়ে কিছুক্ষণ  হাসাহাসি করেন ছাত্র-শিক্ষক।

প্রিয় শিক্ষকের কাছে তথ্যমন্ত্রী জানতে চান, এখন মুসলিম হাই স্কুলে পড়াশোনার মান কেমন? জবাব আসে, ‘খুবই ভালো। প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়-এর মধ্যে থাকেই।’ পাশ থেকে আরেকজন ব্যক্তি যোগ করেন, ‘শতভাগ পাসের হার, এবার ৩১২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।’

প্রসঙ্গক্রমে প্রবীণ শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘উদারতার কোনো বিকল্প নেই। আকাশসম উদারতা দেখাতে হবে।’ বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজামকে নিজের প্রিয় সাংবাদিক বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আলাপচারিতার সময় শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে মাস্টার্স করেছি, আবার বৈরুতে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে ইংরেজিতে এমএ করেছি, এরপর শিক্ষকতায় এসেছি।’ এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলে উঠেন, ‘স্যারের যোগ্যতা এত বেশী যে, শিক্ষকতায় না আসলে পাকিস্তানের সচিব হতেন।’

মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘আমি তো সেখানে (প্রশাসনের কর্মকর্তা) যাবো না বলে আগে থেকেই ঠিক করেছিলাম।’ স্মৃতিচারণ করে তথ্যমন্ত্রী জানতে চান, স্যার আগে সাইকেল চালাতেন, এখনও চালান?’ জবাব আসে, ‘অনেকদিন ধরে চালাই না।’

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদকে আগামীতে শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান বলে প্রত্যাশার কথা জানান প্রবীণ শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাক। তিনি বলেন, একজন ডক্টর আরেকজন ডক্টরের মূল্য বুঝবেন। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি একজন লিডার, তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীর দায়িত্বে ভালো করতেন বলেও বিশ্বাস করেন এ শিক্ষক। একটু দ্বিমত পোষণ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ডা. দীপুমনি শিক্ষায় খুব ভালো করছেন।

ফিরে যাওয়ার আগে আরেকবার প্রিয় শিক্ষকের পা ধরে সালাম করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাকও মাথায় হাত বুলিয়ে দোয়া করেন তথ্যমন্ত্রীকে।

এসময় তথ্যমন্ত্রীর একই ব্যাচের স্কুলবন্ধু জামাল নাছের ও সামশুদ্দিন দুলাল উপস্থিত ছিলেন।


সাবস্ক্রাইব ইউটিউব চ্যানেল